৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ২১শে নভেম্বর, ২০১৯ ইং

‘রাজাকার’ দাউদ মোল্লার মুক্তিযোদ্ধা ভাতা স্থগিত

News

ফরিদপুরের বোয়ালমারী উপজেলার চতুল ইউনিয়নের হাসামদিয়া গ্রামের চিহ্নিত রাজাকার আবু দাউদ মোল্যার মুক্তিযোদ্ধা ভাতা স্থগিতে সরকারকে কৃতজ্ঞতা জানিয়ে ৭ নভেম্বর বৃহস্পতিবার সকালে সংবাদ সম্মেলন করেছে চতুল ইউপি ১ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ। সংবাদ সম্মেলনে এলাকাবাসীর পক্ষে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলাম। লিখিত বক্তব্য থেকে জানা যায়, আবু দাউদ মোল্যা স্বাধীনতা যুদ্ধচলাকালে মানবতাবিরোধী অপরাধে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত পলাতক যুদ্ধাপরাধী আবুল কালাম আজাদ (বাচ্চু রাজাকার) বাহিনীর সদস্য ছিলেন। সে সময় এলাকার বিভিন্ন হিন্দু বাড়িতে লুটতারাজ ও অগ্নিসংযোগের একাধিক অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। পরবর্তীতে এই রাজাকার স্থানীয় একজন প্রভাবশালী মুক্তিযোদ্ধাকে অনৈতিক সুবিধা দিয়ে নিজেকে মুক্তিযোদ্ধা তালিকাভুক্ত করেন। সম্প্রতি সরকার ঘোষিত মুক্তিযোদ্ধা ভাতা স্থগিত অধ্যাদেশ-২০১৯ এ বোয়ালমারী মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ১৫ জনের ভাতা স্থগিত আদেশের মধ্যে আবু দাউদ মোল্যার নাম রয়েছে। ভাতা স্থগিত হওয়ার পর থেকে আবু দাউদ মোল্যা বিভিন্নভাবে তার মুক্তিযোদ্ধা সনদ টিকিয়ে রাখতে প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। এছাড়া মুক্তিযোদ্ধা কোঠায় তার দুই সন্তানের সরকারি চাকরি ঠিক রাখতে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে দৌঁড়ঝাঁপ শুরু করেছেন। সংবাদ সম্মেলনে দাবি করা হয়, রাজাকার আবু দাউদ মোল্যা মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে প্রাপ্তভাতা ও মুক্তিযোদ্ধা কোঠায় পরিবারের বাগিয়ে নেয়া সরকারি সুযোগ-সুবিধা প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধাদের অবমূল্যায়ন করার সামিল। তাই তদন্তপূর্বক তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার জোর দাবি জানানো হয়। সংবাদ সম্মেলনে ছিলেন- চতুল ইউপি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম খান, সহসভাপতি খন্দকার আবুল বাশার (বাসু), খন্দকার মোজাফর আলী, হাসমত আলী, নিরঞ্জন কুমার সাহা, মোসলেম শেখ, বারিক মিয়া, আফজাল শেখ প্রমুখ। এ ব্যাপারে আবু দাউদ মোল্যা জানান, স্থানীয় একটি মাদ্রাসার দুর্নীতির বিরুদ্ধে কথা বলায় দুর্নীতিবাজরা আমার বিরুদ্ধে বিভিন্ন অপ-প্রচার চালিয়ে আসছে। আমি লাল তালিকাভুক্ত মুক্তিযোদ্ধা। আমার ভাতা স্থগিতের বিরুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়ে প্রমাণপত্র দাখিল করেছি। আশা করি, অচিরেই আমি প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা তা প্রমাণিত হবে। বোয়ালমারী মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার আবদুর রশিদ বলেন, বোয়ালমারীতে ১৫ জন মুক্তিযোদ্ধার ভাতা স্থগিত হয়েছে, তার মধ্যে আবু দাউদ মোল্যার নামও রয়েছে। স্বাধীনতাযুদ্ধে তার বিতর্কিত অবস্থান ছিল বলে আমি জেনেছি।

     এ জাতীয় আরো সংবাদ